কেন্দ্রীয় শিক্ষা ও দক্ষতা উন্নয়ন মন্ত্রী মহাত্মা গান্ধী জাতীয় ফেলোশিপ কর্মসূচির দ্বিতীয় পর্যায়ের সূচনা করেছেন

0
129
Books - Friend for Life
Books - Friend for Life
Azadi Ka Amrit Mahoutsav

কেন্দ্রীয় শিক্ষা ও দক্ষতা উন্নয়ন মন্ত্রী মহাত্মা গান্ধী জাতীয় ফেলোশিপ কর্মসূচির দ্বিতীয় পর্যায়ের সূচনা করেছেন
তৃণমূল স্তরে সামাজিক পরিবর্তনের অনুঘটক হয়ে ওঠার জন্য যুবসম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন শ্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান

By PIB Kolkata
নয়াদিল্লি, ২৫ অক্টোবর, ২০২১

কেন্দ্রীয় শিক্ষা ও দক্ষতা উন্নয়ন মন্ত্রী শ্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান আজ মহাত্মা গান্ধী জাতীয় ফেলোশিপ কর্মসূচির দ্বিতীয় পর্যায়ের সূচনা করেছেন। দু’বছর মেয়াদী এই ফেলোশিপ কর্মসূচির উদ্দেশ্য হ’ল তৃণমূল স্তরে দক্ষতা উন্নয়নের প্রসারে অবদান রাখার জন্য যুবসমাজ ও সৃজনশীল ক্ষমতার অধিকারী ব্যক্তিদের সুযোগ তৈরি করে দেওয়া।

এই কর্মসূচিতে অংশীদার উচ্চ শিক্ষার প্রতিষ্ঠান আইআইএম-গুলির মাধ্যমে শ্রেণীকক্ষে শিক্ষণ সহ জেলাস্তরে নিবিড় হাতেনাতে প্রশিক্ষণের পরিকল্পনা রয়েছে। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের সুযোগ, আর্থিক সুফল এবং গ্রামাঞ্চলে জীবনজীবিকার প্রসারের ক্ষেত্রে বাধা-বিপত্তিগুলিকে চিহ্নিত করা হবে।

এই উপলক্ষে শ্রী প্রধান দক্ষতা উন্নয়নমূলক প্রয়াসের মাধ্যমে একেবারে তৃণমূল স্তরে সামাজিক পরিবর্তনের ক্ষেত্রে অনুঘটকের ভূমিকা পালনের জন্য যুবসমাজের প্রতি আহ্বান জানান। এই কর্মসূচির মাধ্যমে পরিবর্তনের এক নতুন সাফল্যের কাহিনী রচনায় যুবসমাজকে সবদিক থেকে সুযোগ করে দেওয়ার জন্য শ্রী প্রধান জেলাশাসক এবং অংশীদার উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আইআইএম-গুলির প্রতি আহ্বান জানান।

শিক্ষা মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীর সুদক্ষ নেতৃত্বে আমরা আত্মনির্ভর ভারত গড়ে তোলার লক্ষ্যে অগ্রসর হচ্ছি। বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যাপক পরিবর্তন আসছে। এর ফলে, নতুন ধরনের দক্ষতার পাশাপাশি, সুদক্ষ পেশাদারদের চাহিদা বাড়ছে। একই সঙ্গে, জেলাস্তরে দক্ষতা কর্মসূচি গ্রহণ ও দক্ষতা উন্নয়নমূলক প্রয়াসগুলিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া অত্যন্ত জরুরি হয়ে উঠেছে।

একবিংশ শতাব্দীর চাহিদা ও স্থানীয় বাস্তবতার সঙ্গে সঙ্গতি বজায় রাখতে শ্রী প্রধান দক্ষতা উন্নয়নমূলক প্রয়াসে স্থানীয় ভাষার প্রয়োগ ঘটিয়ে দক্ষতার মান আরও বাড়ানোর ওপর জোর দেন। তিনি বলেন, চাহিদার বিষয়গুলিকে বিবেচনায় রেখে দক্ষতাকে বিশ্বমানের করে তুলতে হবে।

২০২০-র জাতীয় শিক্ষা নীতি প্রসঙ্গে শ্রী প্রধান শিক্ষা ও দক্ষতার মধ্যে আরও নিবিড় যোগসূত্র গড়ে তোলার পরিকল্পনার কথা উল্লেখ করে এই লক্ষ্যে অ্যাকাডেমিক ব্যাঙ্ক অফ ক্রেডিট নীতি ঘোষণা করা হয়েছে বলেও জানান। জাতীয় শিক্ষা নীতি প্রসঙ্গে যুবসমাজকে আরও সচেতন করে তুলতে তিনি আইআইএম-গুলির প্রতি আহ্বান জানান। এই উপলক্ষে দক্ষতা উন্নয়ন ও শিল্পোদ্যোগ মন্ত্রকের সচিব শ্রী রাজেশ আগরওয়াল, যুগ্মসচিব শ্রীমতী অনুরাধা ভিমুরি, আইআইএম ব্যাঙ্গালোরের অধ্যাপক শ্রী অর্ণব মুখার্জি সহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মহাত্মা গান্ধী জাতীয় ফেলোশিপ প্রসঙ্গ : দেশে দক্ষতা প্রশিক্ষণ ব্যবস্থাকে আরও শক্তিশালী এবং দক্ষতা কর্মসূচির সার্বিক প্রসারে বিশ্ব ব্যাঙ্কের ঋণ সহায়তায় সঙ্কল্প কর্মসূচির সূচনা হয় ২০১৮’র জানুয়ারিতে। কেন্দ্রীয় দক্ষতা উন্নয়ন ও শিল্পোদ্যোগ মন্ত্রক জেলাস্তরীয় দক্ষতা কমিটিগুলির সাহায্যে এই কর্মসূচি রূপায়ণ করছে। দেশে দক্ষ মানবসম্পদের চাহিদা ও যোগানের মধ্যে ঘাটতি কমাতে এই কর্মসূচি রূপায়িত হচ্ছে। এর ফলে, দক্ষ যুবক-যুবতীদের কর্মসংস্থান ও উপার্জনের সুযোগ বাড়ছে।

উল্লেখ করা যেতে পারে, অংশীদার উচ্চ শিক্ষা প্রশিক্ষণ হিসাবে আইআইএম ব্যাঙ্গালোরের সহযোগিতায় মহাত্মা গান্ধী জাতীয় ফেলোশিপ কর্মসূচির প্রথম পর্যায়ের সূচনা হয়। প্রথম পর্যায়ে ৬৯ জন যুবার ৬টি রাজ্যে ৬৯টি জেলায় দক্ষতা উন্নয়নের কাজে যুক্ত রয়েছে। কর্মসূচির দ্বিতীয় পর্যায়ের আজ সূচনা হয়েছে। এই পর্যায়ে মহাত্মা গান্ধী জাতীয় ফেলোশিপ পাওয়া ৬৬১ জনকে দেশের প্রতিটি জেলায় দক্ষতার মান বাড়ানোর কাজে নিয়োগ করা হবে। দ্বিতীয় পর্যায়ে আরও ৮টি আইআইএম অংশীদার উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসাবে প্রশিক্ষণের সহায়তার জন্য কর্মসূচিতে যুক্ত হয়েছে।

Advertisements
IBGNewsCovidService
USD

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here