৭৫ তম স্বাধীনতা দিবস উদযাপন উপলক্ষে ভারতের রাষ্ট্রপতি যোগেন্দ্র সিং যাদবকে সাম্মানিক ক্যাপ্টেনের পদমর্যাদা প্রদান করেছেন

0
104
The President, Shri Ram Nath Kovind paying homage at the National War Memorial, on the occasion of 75th Independence Day, in New Delhi on August 15, 2021. The Chief of Defence Staff (CDS) & Secretary Department of Military Affairs, General Bipin Rawat, the Chief of the Army Staff, General Manoj Mukund Naravane, the Chief of Naval Staff, Admiral Karambir Singh and the Chief of the Air Staff, Air Chief Marshal R.K.S. Bhadauria are also seen.
The President, Shri Ram Nath Kovind paying homage at the National War Memorial, on the occasion of 75th Independence Day, in New Delhi on August 15, 2021. The Chief of Defence Staff (CDS) & Secretary Department of Military Affairs, General Bipin Rawat, the Chief of the Army Staff, General Manoj Mukund Naravane, the Chief of Naval Staff, Admiral Karambir Singh and the Chief of the Air Staff, Air Chief Marshal R.K.S. Bhadauria are also seen.
ShyamSundarCoJwellers

কর্নেল দ্য গ্রেনেডিয়ার লেফটেন্যান্ট জেনারেল রাজীব সিরোহি পরমবীর চক্রে সম্মানিত সুবেদার মেজর (সাম্মানিক লেফটেন্যান্ট) যোগেন্দ্র সিং যাদবকে সাম্মানিক ক্যাপ্টেনের পদমর্যাদা প্রদান করেছেন

By PIB Kolkata

নতুন দিল্লি, ১৫ আগস্ট, ২০২১

৭৫ তম স্বাধীনতা দিবস উদযাপন উপলক্ষে ভারতের রাষ্ট্রপতি পরমবীর চক্রে ভূষিত সুবেদার মেজর (সাম্মানিক লেফটেন্যান্ট) যোগেন্দ্র সিং যাদবকে সাম্মানিক ক্যাপ্টেন পদমর্যাদায় সম্মানিত করেছেন। অসীম সাহসী সুবেদার মেজর যোগেন্দ্র যাদবকে সম্মানিত করতে কর্নেল দ্য গ্রেনেডিয়ার এবং সামরিক সচিব লেফটেন্যান্ট জেনারেল রাজীব সিরোহি নতুন দিল্লিতে সেনা সদর দপ্তরে তাঁকে পদমর্যাদার ব্যাচ পরিয়ে দেন।

সুবেদর মেজর (সাম্মানিক লেফটেন্যান্ট) যোগেন্দ্র সিং যাদব হলেন সর্বকনিষ্ঠ ব্যক্তি, যিনি মাত্র ১৯ বছর বয়সে যুদ্ধকালীন সর্বোচ্চ বীরত্ব সম্মান হিসেবে পরমবীর চক্রে ভূষিত হয়েছেন। তাঁর নেওয়া অসীম সাহসী পদক্ষেপগুলির দরুন টাইগার হিল কমপ্লেক্সে ১৮টি গ্রেনেডিয়ার দখলে নেওয়া সম্ভব হয়েছিল।

১৯৯৯ সালে ৪ জুলাই তিনি এক অসাধারণ বীরত্বের নজির রেখে টাইগার হিলে তিনটি রণকৌশলগত দিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ বাঙ্কার দখলের চেষ্টা চালিয়েছিলেন। এই কাজে তিনি ঘাতক কম্যান্ড প্ল্যাটুনের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। প্ল্যাটুনের জওয়ানরা বরফে ঢাকা চূড়ায় খাড়া ভাবে আরোহন শুরু করেন। চূড়ার অর্ধেক পথে পৌঁছে তাঁরা শত্রুপক্ষের একটি বাঙ্কার দেখতে পান। এমনকি তাঁরাও শত্রুপক্ষের নজরে পড়ে গেলে তাঁদের দিকে তাক করে মেশিনগান ও রকেট ছোড়া শুরু হয়। শরীরে ৩টি গুলির আঘাত সত্বেও গ্রেনেডিয়ার যোগেন্দ্র সিং যাদব বরফ চূড়ার শিখর অভিমুখে আরোহন অব্যাহত রাখেন। গুলিবিদ্ধ অবস্থাতেই তিনি হামাগুড়ি দিয়ে শত্রুপক্ষ পাকিস্তানের বাঙ্কারগুলি গ্রেনেড দিয়ে উড়িয়ে দেন। ঘটনাস্থলেই চার পাকিস্তানি সেনা মারা যান। কেবল তাঁর প্রচেষ্টাতেই বরফ চূড়ার বাকি অংশে খাড়া ভাবে আরোহন করে ওঠার পথ প্রশস্ত হয়ে যায়। গ্রেনেডিয়ার যোগেন্দ্র সিং যাদব গুরুতর জখম হয়েও অন্য ৭জন সেনা জওয়ান নিয়ে শত্রুপক্ষের দ্বিতীয় বাঙ্কারের দিকে এগিয়ে যান। দ্বিতীয় বাঙ্কারটি দখল হলেও গ্রেনেডিয়ার যোগেন্দ্র সিং যাদবের শরীরে ১৫টি গুলি লাগে, দুটি হ্যান্ড গ্রেনেডে দেহ ক্ষত-বিক্ষত হয়ে যায় এবং হাত ভেঙে ঝুলে পড়ে। নিদারুণ যন্ত্রণা ও ব্যাথা নিয়েও তিনি প্রাণ বেঁচে যান।

এই অতুলনীয় সাহসিকতার দরুণ তিনি দেশের যুদ্ধ ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বীরত্ব পুরস্কার পরমবীর চক্রে সম্মানিত হন। শুধু তাই নয়, সেনাবাহিনীতে তিনি দৃষ্টান্তমূলক সাহসিকতার জন্য জীবিত অবস্থাতেই কিংবদন্তীতে পরিণত হয়েছেন।

Advertisements IBGNewsCovidService
USD